বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব শুরু

বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব শুরু

বিনোদন রিপোর্টঃ  বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব’ এর সবচেয়ে মজার দিক হলো এর বিচারক। কারণ এখানে বিচারক হিসেবে আছে শিশুদের একটি দল। এবারের উৎসবে প্রাথমিকভাবে ছিল ৭০টি দেশের ১৫০০ চলচ্চিত্রের তালিকা। আর তা কেটে-ছেঁটে ২২০টি ছবিতে নামিয়ে এনেছে শিশু বিচারকরাই।৫৮টি দেশের এ ছবিগুলো নিয়ে ২৭ জানুয়ারি (শনিবার) থেকে রাজধানীর পাবলিক লাইব্রেরীর শওকত ওসমান মিলনায়তনে শুরু হয়েছে চলচ্চিত্র উৎসবটির ১১তম আসর। এর আয়োজক চিলড্রেনস ফিল্ম সোসাইটি বাংলাদেশ।‘ফ্রেমে ফ্রেমে আগামীর স্বপ্ন’ স্লোগান নিয়ে এবারে উৎসবের যাত্রা শুরু করল। এদিন বিকাল ৪টায় উৎসবের উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের ডিরেক্টর বারবার উইকহ্যাম ও অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উৎসব উপদেষ্টা পরিষদের সভাপতি মুস্তাফা মনোয়ার। উপস্থিত ছিলেন চিলড্রেন ফিল্ম সোসাইটি বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট লেখক, অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল।আলোচনার শুরুতে প্রদীপ প্রজ্বলন করেন অতিথিরা। প্রধান অতিথির বক্তব্যে  অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, ‘শিশু জীবন বড় আনন্দের, এই জীবন উৎসবের। এই উৎসবের জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত শিশুদের উপভোগ করতে দিতে হবে। শিশুরা চলচ্চিত্র নির্মাণ করছে, এ তো তাদের আনন্দের বহিঃপ্রকাশ। চলচ্চিত্রে তারা বলুক আনন্দময় জীবনের কথা।’ঢাকায় মূল উৎসব কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমানমিলনায়তন। এছাড়া উৎসবের অন্য ভেন্যু হিসেবে রয়েছে শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তন, ধানমন্ডির আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ ও গ্যাঁটে ইন্সটিটিউট, ফুলার রোডের ব্রিটিশ কাউন্সিল ও সেগুনবাগিচায় অবস্থিত বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।প্রতিদিন সকাল ১১টা, দুপুর ২টা, বিকাল ৪টা, সন্ধ্যা ৬টায় মোট ৪টি প্রদর্শনী চলছে।উৎসবে আছে বাংলাদেশি শিশুদের নির্মিত প্রতিযোগিতা বিভাগ। এ বিভাগে নির্বাচিত ২১টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হচ্ছে। এর মধ্য থেকে ৫টি চলচ্চিত্রকে পুরস্কার দেওয়া হবে। এ বছরও থাকছে ‘ইয়াং বাংলাদেশি ফিল্ম মেকার সেকশন’। যেখানে ১৯ থেকে ২৫ বছর বয়সী তরুণ নির্মাতারা অংশ নিয়েছেন।উৎসব চলবে ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।