তাড়াশে মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণ শিক্ষার শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন

তাড়াশে মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণ শিক্ষার শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন

রফিকুল ইসলাম: সিরাজগঞ্জের তাড়াশে মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণ শিক্ষা কার্যক্রম ( মউশিক) প্রকল্পের শিক্ষকরা সম্মানী ভাতা না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন।
জানা গেছে, বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের আওতাধীন ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন পরিচালিত মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণ শিক্ষা কার্যক্রম ( মউশিক) প্রকল্পের তাড়াশ উপজেলার ৮৪ জন শিক্ষক নভেম্বর’২০১৭ মাস হতে ফেব্রুয়ারী’২০১৮ পর্যন্ত ৪ মাস যাবৎ সম্মানী ভাতা না পেয়ে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, দেশের শতভাগ নিরক্ষরমুক্ত ও সহী পদ্বতিতে কুর-আন শিক্ষার পাশা পাশি ইসলামী জ্ঞান চর্চা ও ইমামদের কর্ম সংস্থানের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ১৯৭৫ সালে ২২ মার্চ এক অধ্যাদেশ বলে ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে মসজিদের ইমামগণ ৪ হাজার টাকা সম্মানীতে তারা নিষ্ঠার সাথে তাদের দায়িত্ব পালন করে আসছে। কিন্তু তাও নিয়মিত না পাওয়ায় তাদের দু:খের শেষ নেই। তাছাড়াও তাদের উপর অর্পিত দায়িত্বের পাশা পাশি শিক্ষকরা সমাজে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টিতে ভুমিকা রাখছেন।
এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষক বলেন, আমরা শিক্ষা দানের পাশা পাশি সরকারের বিভিন্ন কর্মসুচিতে সহযোগীতা করে থাকি। অথচ নিয়মিত ভাবে সম্মানী ভাতা পাই না। নিয়মিত সম্মানী ভাতা পেলেএবং আমাদের ভাতা বৃদ্ধি করলে আমরা দায়িত্ব পালনে আরো উৎসাহ পাব।
এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জের উপ-পরিচালক মো. বজলুল করিম জানান, টাকা আসা মাত্রই শিক্ষকদের সম্মানী ভাতা প্রদান করা হবে।