কাঁদার কারণ বললেন নেইমার

কাঁদার কারণ বললেন নেইমার

ক্রীড়া ডেস্ক ঃ 

কোস্টারিকার বিপক্ষে ম্যাচ শেষ হতেই মাঠের একধারে হাঁটু গেড়ে বসে পড়লেন নেইমার। মুখ চেপে কাঁদছেন তিনি। টেলিভিশনের পর্দায় নেইমারের মুখায়ব দেখা না গেলেও তিনি যে ফুঁপিয়ে ফুপিয়ে কাঁদছেন সেটি বুঝতে কারও অসুবিধে হয়নি। কিন্তু ম্যাচটি তো ব্রাজিল হারেনি, তাহলে কেন এই কান্না নেইমারের?

অনেকে ধরে নিয়েছিলেন, ম্যাচ জিতে আবেগেই কেঁদে ফেলেছেন নেইমার। হ্যাঁ, অনেকটা ঠিক তাই। ব্রাজিলের সবচেয়ে বড় তারকার এই কান্নার মধ্যে ছিল আনন্দ, নিজেকে ফিরে পাওয়ার।

নেইমার নিজেই ইনস্টাগ্রামে জানিয়েছেন তাঁর কান্না ছিল আনন্দের, ‘এখানে (রাশিয়া) আসতে আমি কিসের মধ্য দিয়ে গিয়েছি, তা সবাই জানে না। এই কান্না আনন্দের, সমস্যা কাটিয়ে ওঠার এবং জয়ের ইচ্ছা প্রকাশের।’

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ ব্রাজিল ১-১ এ ড্র করেছিল। সেই ম্যাচে নেইমার প্রচুর ফাউলের শিকার হয়েছিলেন। গুনে গুনে তাঁকে ১১ বার ফাউল করা হয়েছিল। ফলে নিজেকে ঠিকঠাক মেলে ধরতে পারেননি নেইমার। উল্টো, চারদিক থেকে সমালোচনা শুনতে হয়েছিল। কোস্টারিকার বিপক্ষে দুর্দান্ত খেলে সমালোচকদেরই জবাব দিয়েছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা।

সমালোচকদের দিকে ইঙ্গিত করেই নেইমার পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন, ‘আমার জীবনে কখনো কোনো কিছু সহজ ছিল না। তাই এখন কেন হবে?’

সত্যি, নেইমারের জীবনে কোনও কিছু সহজ ছিল না। গতবারের ঘরের মাঠে বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে কলম্বিয়ার বিপক্ষে জুনিনের ট্যাকলে মচকে গেল পা। সেমিফাইনালে জার্মানির বিপক্ষে খেলতেই পারলেন না। ফল ১-৭ গোলের হার। এবারও বিশ্বকাপের আগে পিএসজির হয়ে খেলার সময় পা ভাঙলেন।

রাশিয়া বিশ্বকাপ খেলেতে পারবেন কি না তা নিয়েই ছিল সংশয়। শেষ অবধি সব শঙ্কা এক পাশে রেখে বিশ্বকাপে এসেছেন নেইমার এবং খেলছেন। কোস্টারিকার বিপক্ষে গোলও করলেন। ব্রাজিল জয় পাওয়ার পর নেইমারের সেই কষ্টের প্রকাশ ঘটল চোখের পানিতে।