সলঙ্গার ঐতিহ্যবাহী থানা মাঠটি এখন খেলাধূলার অনুপযোগী

সলঙ্গার ঐতিহ্যবাহী থানা মাঠটি এখন খেলাধূলার অনুপযোগী

সাহেদ আলী,সলঙ্গা (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি : জেলার সলঙ্গা থানার সদর গরু হাটা খেলার মাঠটি দীর্ঘদিন ধরে জলবদ্ধতায় খেলাধুলার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। একটু বৃষ্টি হলেই হাটু পানি জমে থাকে। এ বছর অধিক বৃষ্টিপাতের কারনে আরও বেশী পানি জমে থাকায় মাঠটি আশেপাশের লোকজনের যাতায়াতে কষ্ট সহ ক্রীড়ানুরাগীদের খেলাধুলায় চরম ব্যঘাত সৃষ্টি হচ্ছে। জন প্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্টদের একাধীকবার এ জলাবদ্ধতা নিরসনের কথা বলেও সমাধান হচ্ছে না বলে অভিযোগ অনেকের। স্থানীয়রা জানায়, ঐতিহ্যবাহী সলঙ্গা থানা মাঠটি নীচু হওয়ায় প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম থেকে শুরু করে কয়েক মাস এ দুর্ভোগ পোহাতে হয়। সলঙ্গা বাজারের মুরাদ মাষ্টার, ইকবাল হোসেন, হোসেন আলী, আলহাজ্ব, কুঠিপাড়ার গিয়াস, হাসু, রাজু, মামুন দশানি পাড়ার আকরাম, জলিল সহ অনেকেই জানায়, আমরা এক সময়ে এই খেলার মাঠে খেলাধুলা করতাম। কিন্তু ইদানিং খেলার মাঠটি বছরের অধিক সময় ধরে জলাবদ্ধতা থাকায় যুব সম্প্রদায় তাদের খেলাধূলা, আনন্দ বিনোদনের সুযোগ হারাতে বসেছে। স্থানীয় বাসিন্দা ব্যবসায়ী আলতাফ হোসেন জানান, পুরাতন এই খেলার মাঠটির পানি নিষ্কাষনের তেমন সুব্যবস্থা না থাকায় প্রতি বছরই অন্তত ৪/৫ মাস জলাবদ্ধ অবস্থায় থাকে। যে কারনে বাসা থেকে বাজার পাকা রাস্তায় উঠতে বেশ কিছু পরিবারের বাঁশের সাঁকো বানিয়ে যাতায়াত করতে হয়। সলঙ্গা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের স্যাকমো জাহিদ বলেন, খেলার মাঠটি দীর্ঘদিন ধরে জলাবদ্ধতার কারনে কচুরি পানা ও ঘাসে পুরো মাঠ ভরে গেছে। ফলে ময়লা আবর্জনা পড়ে পানি দুর্গন্ধ ছড়ানোয় স্বাস্থ্য ঝুকি ও পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। সলঙ্গার এক সময়কার বিশিষ্ট ফুটবলার গজেন্দ্র নাথ মন্ডল, আকমল হোসেন বাদশা, আনোয়ার হোসেন (টুনু) জানান, প্রাচীনতম এই খেলার মাঠটিতে এক সময় আমরা নিয়মিত খেলাধুলা করতাম। খেলার মাঠে ধর্মীয় সভা, অন্যান্য সভা-সমাবেশ ও জনসভা করা হত। কিন্তু জলাবদ্ধতার কারনে এ সব হারাতে বসেছে। জলাবদ্ধতা নিরাসনে সংশ্লিষ্টদের জরুরী ব্যবস্থা নেয়া দরকার। সলঙ্গা থানায় সদ্য যোগদানকারী অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ওহেদুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, জঙ্গী ও সন্ত্রাস বাদ এবং মাদক মুক্ত বালাদেশ গড়তে হলে যুবক আর তরুন সমাজকে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধূলার প্রতি আকৃষ্ট করতে হবে। খেলাধুলার প্রতি তাদের মনোযোগ যত বৃদ্ধি পাবে ততই তারা অশুভ প্রবনতা মুক্ত হবে। সেই সাথে প্রতিভাবান খেলোয়াড় তৈরীর মধ্য দিয়ে সম্মান-মর্যাদা ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে দেশ। তাই খেলার মাঠটির জলাবদ্ধতা দুরীকরনের চেষ্টা করতে হবে। সচেতন মহলের দাবী, জন প্রতিনিধিরা একটু দৃষ্টি দিলেই এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। বর্তমান সাংসদ রায়গঞ্জ, তাড়াশ ও সলঙ্গার উন্নয়নের রুপকার গাজী ম.ম. আমজাদ হোসেন মিলনকে এ সমস্যা দূরিকরনের জন্য সু-দৃষ্টি দেয়ার অনুরোধ জানান। #