আজ ময়মনসিংহে চতুর্থ বারের মতো তিনদিন ব্যাপী আঞ্চলিক ইজতেমা শুরু

আজ ময়মনসিংহে চতুর্থ বারের মতো তিনদিন ব্যাপী আঞ্চলিক ইজতেমা শুরু

আনিসুুর রহমান ফারুক,ময়মনসিংহ :বিশ্ব ইজতেমার অংশ হিসেবে এবার তাবলীগ জামায়াতের আঞ্চলিক ইজতেমা ময়মনসিংহ বিভাগীয় জেলা সদরের বাড়েরা মুক্তাগাছা বাইপাস সড়ক সংলগ্ন মার্কাজের কেন্দ্রীয় মসজিদ ও ময়দান জুড়ে ১৫০ একর এলাকা জুড়ে ২১, ২২ ও ২৩ ডিসেম্বর তিনদিন ব্যাপী জেলা ইজতেমা বৃহস্পতিবার বাদ ফজর আমবয়ান এর মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

২৩ ডিসেম্বর শনিবার দুপুরে আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে জেলা ইজতেমা সমাপ্ত হবে।

দেশি বিদেশি ধর্মপ্রান মুসল্লীগণর অংশগ্রহনে এক আল্লাহ ও রাসূলের জীবন আদর্শ গঠনের বাস্তব নমুনা চর্চায় মশগুল থাকবে ইজতেমায় আগত মানুষজন।

বাংলাদেশের কাকরাইল মসজিদের শীর্ষস্থানীয় মুরুব্বী আলেম ওলামাগণ বয়ান পেশ করবেন।

ইজতেমা সফল করতে দিন রাত পরিশ্রম করে মাঠের প্যান্ডেল, অজুখানা, টয়লেট, খুটি নির্মান ও বিদেশি মুসল্লীদের তাবু স্থাপনে স্থানীয় মাদরাসার শিক্ষক শিক্ষার্থী আলেম ওলামা ও ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়।

ইজতেমা উপলক্ষে আশপাশের এলাকাতে মার্কেট ও বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী বিক্রির বাজার জমে ওঠেছে।

এবার বধিরদের জন্য আলাদা বয়ান শোনার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানায় ইজতেমা আয়োজক কমিটি। বদিরদের ইশারায় অনুবাদ করার ব্যবস্থা রয়েছে।

সারা দুনিয়ার মানুষ কিভাবে আল্লাহ ওয়ালা ও ঈমানওয়ালা হয়, জাহান্নাম থেকে রক্ষা পেয়ে যাতে জান্নাতে যেতে পারে, এই লক্ষ্য নিয়ে বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মোঃ খলিলুর রহমান জানান, ময়মনসিংহে জেলা ইজতেমায় প্রায় ৫ লক্ষাধিক মুসল্লীর সমাগম হবে। মুসল্লীদের সার্বিক নিরাপত্তায় গোয়েন্দা নজরদারি, ওয়াচ টাওয়ার বসানো, ৩টি কন্ট্রোল রুম স্থাপন, সন্ত্রাস ও নাশকতাসহ নানা অপরাধ দমনে সিসি ক্যামেরা, মুসল্লীদের নির্বিগ্নে যাতায়াত নিশ্চিতকরণে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত করা, ফুলবাড়িয়া বাইপাস মোড় হতে ইজতেমা পশ্চিম প্রান্তের মাঠে পর্যাপ্ত মহাসড়কের দুপাশে দোকানপাট না বসানো, একটি কক্ষে মেডিকেল টীম সার্বক্ষনিক চিকিৎসা প্রদান, বিশুদ্ধ খাবার পানি নিশ্চিতকরণ প্রতিদিন মশক নিধনে ওষুধ ছিটানো ও পয়:ব্যর্জ অপসারণ, দুর্ঘটনা রোধ ব্যবস্থা গ্রহন ও উদ্ধার তৎপরতায় ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ও এম্বুলেন্স স্ট্যান্ডবাই রাখাসহ অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ইজতেমা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে গত ৭ ডিসেম্বর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের ইজতমার মুরুব্বীগণ অংশ নেন।

ময়মনসিংহ জেলা তাবলীগ জামায়াতের সূরা সদস্য, জেলা ইজতেমা ব্যবস্থাপনা কমিটির জিম্মাদার ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি প্রকৌশল ও কারিগরি অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মোশাররফ হোসেন জানান, ময়মনসিংহ শহরতলীর ফুলবাড়ীয়া বাইপাসের মোড়ের সাথে বাড়েরায় মার্কাজ মসজিদ সংলগ্ন ২২ একর এবং এর পশ্চিমে প্রায় ৬০ একর জমিতে এবার ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে।

ইজতেমার মূল বক্তৃতা মঞ্চ হবে পশ্চিমের প্যান্ডেলে উজান বাড়েরায়। প্যান্ডেল কমিটির জিম্মদার বাকৃবি প্রফেসর ড. মো. মামুনুর রশীদ জানান, ইজতেমার প্যান্ডেলের ভিতরে ১৪ খিত্তা রয়েছে, এসব খিত্তায় ময়মনসিংহ জেলার ১৩টি উপজেলা হতে আগত মুসল্লীদের জন্য নির্ধারিত স্থান রাখা হয়েছে।

এতে মোট ২৫০টি মসজিদওয়ালি জামায়াত কাজ করবে। ইতোমধ্যে ইজতেমা এলাকায় বাঁশ ও তাবু দিয়ে বিশাল এলাকা জুড়ে প্যান্ডেল তৈরী করা হয়েছে। প্রায় সাড়ে তিন লাখ ধর্মপ্রাণ মুসুল্লী দ্বীনের বয়ান শুনতে পারবেন।

এছাড়া আশপাশে পর্যাপ্ত খোলা জায়গা রয়েছে। অজু ও গোসলের জন্য ইজতেমা মাঠ সংলগ্ন বাঁশের মাচা তৈরী করা হয়েছে।

র‌্যাব-১৪, ময়মনসিংহ অধিনায়ক লে. কর্ণেল মোঃ শরীফুল ইলাম জানান, র‌্যাবের পক্ষ থেকে নিয়মিত টহল, রিাজার্ভ ফোর্স, ওয়াচ টাওয়ারে পর্যবেক্ষণসহ ময়মনসিংহের আঞ্চলিক ইজতেমায় মুসল্লীদের সুষ্ঠু নিরাপত্তায় সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

ময়মনসিংহে জেলায় ২০০৩ সালে প্রথম আঞ্চলিক ইজমেতা হয়। এরপর ২০০৮ সালে দ্বিতীয়, ২০১৫ সালে তৃতীয় এবং ২০১৭ সালের ২১,২২ ও ২৩ ডিসেম্বর ৪র্থ জেলা ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

টঙ্গীর তুরাগ নদীদের তীরে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমায় ভীড় ও মানুষের কষ্ট কমাতে এ বছর দেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে ৩২ জেলা আঞ্চলিক ইজতেমা আয়োজনের ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম জানান আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সাদা পোশাকের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের সংস্থার মাধ্যমে পুরো এলাকা নিয়ন্ত্রন থাকবে।

ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মো: খলিলুর রহমান জানান কয়েক দফা তাবলীগ জামাতের নেতৃবৃন্দে সাথে বৈঠক করে যাবতীয় কার্যক্রম সম্পর্কে অবগত হয়ে বিভিন্ন পর্যায়ে টিম গঠনের মাধ্যমে আইন শৃঙ্খলা জন সাধারনকে নিরাপদ ও নির্বিঙ্গে ইজতেমায় বয়ান শোনা ও অবস্থানের পুরোপুরি মনিটরিং কার্যক্রম আমাদের নিয়ন্ত্রনে থাকবে