খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষের গাফিলতি মূল কারন নন্দীগ্রামে চাউল ক্রয়ের লক্ষমাত্রা পুরণ না হওয়ার সম্ভাবনা

খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষের গাফিলতি মূল কারন নন্দীগ্রামে চাউল ক্রয়ের লক্ষমাত্রা পুরণ না হওয়ার সম্ভাবনা

মোঃ ফজলুর রহমান,নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি :বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় এবার খাদ্য গুদামে অভ্যান্তরিন আমন চাউল সংগ্রহের লক্ষমাত্রা নানা প্রতিকুলতার কারনে পুরণ না হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। প্রাপ্ত তথ্য জানাযায়, এবছর আমন মৌসুমে ৪২২ মেট্রিক টন চাউল ক্রয়ের জন্য সরকার থেকে নন্দীগ্রাম খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষকে গত ৩রা ডিসেম্বর চিঠি প্রদান করে। চিঠিতে মোটা চাউল ৩৯ টাকা ও আতপ চাউল ৩৮ টাকা ক্রয়ের জন্য বলা হয়। কিন্তু নন্দীগ্রাম খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারনে চিঠি পাওয়ার ২৩ দিন পর গত ২৬ শে ডিসেম্বর চাউল ক্রয়ের উদ্ভোধন করে। এদিকে আমন চাউল সংগ্রহের জন্য নন্দীগ্রাম উপজেলার ১৩টি মিল মালিককে খাদ্য গুদামের কর্মকর্তারা ৪২২ মেট্রিক টন চাউল প্রদানের জন্য বন্টন করে দেয়। কিন্তুু বাজারে চাউলের দাম বেশি ও খারাপ আবহাওয়ার কারনে মিল মালিকরা চাউল প্রদান করছে না। এতে করে একদিকে খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষের গাফিলতিতে দেরিতে চাউল ক্রয় শুরু করা অন্যদিকে খারাপ আবহাওয়ার কারনে মিল মালিকদের খাদ্য গুদামে চাউল প্রদান না করায় এবছর আমন মৌসুমের চাউল ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা পুরণ না হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এবিষয়ে নন্দীগ্রাম খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোঃ রশিদুল হকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিনিধিকে জানান, খারাপ আবহাওয়া ও বাজারের উর্দ্ধগতির কারনে চাউল কেনা সম্ভব হয়নি তবে গত ২৬ শে ডিসেম্বর ৫ টন চাউল ক্রয় করা হয়েছে। আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বরাদ্দকৃত চাউল ক্রয় করা হবে। এদিকে কৃষকরা অভিযোগ তুলেছে সরকারীভাবে চাউল ক্রয় শুরু হলে বাজারে মূল্য আরো বেড়ে যেত। আমরা আরো বেশি লাভবান হতাম।