প্রতিনিয়ত কাপ্তাই সড়কে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ছে। চুয়েট শিক্ষার্থীরা

প্রতিনিয়ত কাপ্তাই সড়কে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ছে। চুয়েট শিক্ষার্থীরা

মোঃ কবির হোসেন, রাঙ্গামাটি প্রতিনিধিঃ
কাপ্তাই সড়কে সিএনজি যাত্রীবেশী ছিনতাইকারীরা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রতিনিয়ত মোবাইল-টাকা ছিনতাই করছে এই অভিযোগে চুয়েট শিক্ষার্থীরা গতকাল সন্ধ্যা ছয়টা থেকে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত কাপ্তাই সড়ক অবরোধ করেছে। এসময় শিক্ষার্থীরা সড়কের ওপর টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ সৃষ্টির পাশাপাশি কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করেছে। এই ঘটনায় সড়ক পথের দীর্ঘক্ষণ যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। পরে পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের চুয়েট ছাত্র শিক্ষকদের মধ্যে বৈঠকের পর অবরোধ তুলে নেয়া হয় রাত সাড়ে আটটায়।

চুয়েট শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা প্রতিনিয়ত কাপ্তাই সড়কে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ছে। তাদের অভিযোগ কতিপয় সিএনজি চালকদের সহযোগিতায় এই ছিনতাই হচ্ছে। অভিযোগকারীদের দাবি এর প্রতিবাদ জানাতে চুয়েট গেইটের সম্মুখে শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ সভা করে এর প্রতিকার চাচ্ছিল। এসময় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতে কয়েকটি সিএনজি টেক্সি আটকিয়ে তাদের সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে ডেকে আনার চেষ্টা চলছিল। তারা গাড়ি ভাঙচুরের কথা অস্বীকার করেন। জানা যায়, চুয়েট শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধের সংবাদ পেয়ে প্রথমে চুয়েট ফাঁড়ি পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তারা অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে খবর দেয়া হয় রাউজান থানাকে। এসময় সড়ক অবরোধ করার কারণে আটকে পড়া যাত্রী ও স্থানীয়দের সাথে অবরোধকারীদের মধ্যে কিছুক্ষণ ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলে। খবর পেয়ে রাউজান খানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামাল দেয়। এসময় ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম হোসেন রেজা, সহকারী কমিশনার ভূমি জোনায়েদ কবির সোহাগ, থানার ওসি কেপায়েত উল্লাহ। প্রশাসনের কর্মকর্তারাগণ স্থানীয় চেয়ারম্যান রোকন উদ্দিনকে সাথে নিয়ে চুয়েট ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে চুয়েট শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে বৈঠক করেন। এসময় চুয়েট এর শিক্ষার্থীরা তাদের নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন। প্রশাসনের পক্ষে বিষয় গুলো তদন্ত করে সুরাহা করার আশ্বাস প্রদানের পর ঘটনার সমাপ্তি ঘটে। এব্যাপারে বক্তব্য নেয়ার জন্য দায়িত্বশীল কোনো পক্ষকে ফোনে পাওয়া যায়নি।