তাড়াশ প্রেস ক্লাবের কাণ্ড কাহিনী দেখে জনগণ হতাশ

তাড়াশ প্রেস ক্লাবের কাণ্ড কাহিনী দেখে জনগণ হতাশ

গোলাম রাব্বানি সূর্য,নির্বাহী সম্পাদক ঃ
সিরাজগঞ্জের তাড়াশ প্রেস ক্লাবে চলছে  নানা কাণ্ড কাহিনি। কোন গুরু নাড়াচ্ছে কলকাঠি বুঝতে পারছেনা সাধারণ জনগন। গঠনতন্ত্রে নির্বাচন সংক্রান্ত ২ টি ধাপ উল্লেখ  আছে । ১ টি ধাপ হোল কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার তিন মাস পূর্বে তিন সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ দিয়ে নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা।এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার থাকবেন সরকারী প্রথম শ্রেনির কর্মকর্তা ১জন ও প্রেস ক্লাবের সদস্য সহ কমিশনার থাকবেন ২জন। এ ক্ষেত্রে  প্রেস ক্লাবের সদস্য  ২ জন ভোট দিতে পারবেন কিন্ত কোন প্রার্থী হতে পারবেন না। এই নীতি অনুস্মরণ করে বিভিন্ন মহলের  অনেক বাধায় নির্দিষ্ট সময়ে  নির্বাচন করা সম্ভব হয়নি। আবার ২য় ধাপে উল্লেখ আছে কমিটির মেয়াদ শেষ হলে ৩ সদস্য বিশিষ্ট  একটি আহবায়ক  কমিটি গঠন করে  ৩ মাস  অথবা ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করে একটি কমিটি উপহার দিবে। এই কমিটিতে ১জন থাকবেন প্রধান আহবায়ক ও ২ জন থাকবেন সহ আহবায়ক। এখানে কোন উল্লেখ নাই যে আহবায়ক কমিটি প্রার্থী হতে পারবেন না। এবারেও সব কিছু ঠিক ঠাক থাকার পর মাত্র ৮ ঘণ্টা আগে দলীয় হস্তক্ষেপে নির্বাচন বন্ধ ঘোষণা করা হল। নিয়মে আহবায়ক কমিটির মেয়াদ ১০ জানুয়ারি ২০১৮ তে শেষ হওয়ায় পূর্বের কমিটি বহাল থাকে। ২৫ দিন এই কমিটি কার্যক্রম চালানোর পর চক্রান্তের জালে ফেলে ক্ষমতার দাপত দেখিয়ে ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মেয়াদ শেষ সহ আহবায়ক দ্বারা মিটিং করে কমিটি গঠন করা হয়েছে যা সম্পন্ন অবৈধ কমিটি বলে গণ্য।  এ বিষয়ে প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বলেন, এই কমিটি যা যা করছেন সব কিছুই বেমানান।