ভোলায় চলছে আঞ্চলিক ইজতেমার প্রস্তুতি

ভোলায় চলছে আঞ্চলিক ইজতেমার প্রস্তুতি

ভোলা প্রতিনিধি: পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী জানুয়ারি মাসের ৫,৬ ও ৭ তারিখে প্রথমবারের মতো ভোলা জেলায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে জেলা ভিত্তিক আঞ্চলিক ইজতেমা। ভোলা সদর উপজেলার ঘুইংগার হাটের দক্ষিণে ভোলা-চরফ্যাশন মহাসড়কের পূর্ব পাশের বিশাল ফসলি মাঠকে আঞ্চলিক ইজতেমার ময়দান হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে।

গত ২০ নভেম্বর থেকে চলছে মাঠের প্রস্তুতি। যেখানে ২ লক্ষাধিক বেশি মুসল্লির মিলনমেলা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এখানে ভারত, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশের প্রায় ১০/১৫ জন মেহমান বয়ান করবেন বলে জানিয়েছে ইজতেমা কতৃপক্ষ।

ভোলার ইজতেমা আয়োজকরা জানান, তাবলিগ জামাতের প্রায় শতাধিক সেচ্ছাসেবী বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে বিরতিহীন ভাবে মাঠের নানা দিক প্রস্তুত করছেন।

জেলা মাকরাজ, কাবিল মসজিদ সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে সেচ্ছাসেবী এবং সংশ্লিষ্টরা মেহমান ও মুসল্লিদের জন্য তাককিল কামরা, তাঁবু, টয়লেট, পানির লাইন, ভিতরের রাস্তা এবং শব্দ যন্ত্র স্থাপনের কাজ করছেন।

ইতোমধ্যে তাঁবুর জন্য কয়েক হাজার বাঁশ মাঠে এসেছে। অন্যদিকে ভোলা পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগ ৩ দিনের এ আয়োজনে মাঠে অস্থায়ী বিদ্যুৎ স্থাপনের কাজ করছেন। তাছাড়া জেলার সাধারণ মুসল্লিরা ও পাশ্ববর্তী অনেক জেলার মুসল্লি যারা ঢাকায় যেতে পারবেন না, তারা অবশ্যই এখানে আসবেন। সে হিসাবে ভোলায় এ মাঠে মুসল্লির সংখ্যা ২ লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

আয়োজক সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে চার ভাগে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমা। মুসল্লিদের স্থান সঙ্কুলান না হওয়ায় ২০১১ সাল থেকে দুই পর্বের ইজতেমা শুরুর পর ২০১৬ সালে এ পরিবর্তন আনা হলো।

সে নিয়মানুযায়ী প্রতি বছর দেশের ৩২টি জেলার মুসল্লিদের নিয়ে টঙ্গী তুরাগ তীরে দুই ধাপে অনুষ্ঠিত হবে। বাকি ৩২টি তাদের নিজ নিজ জেলায় আঞ্চলিকভাবে ইজতেমা করবে। চলতি বছরে তুরাগ তীরে ইজতেমায় অংশ গ্রহনকারীরা পরের বছর নিজ নিজ জেলায় ইজতেমা করবে। তবে বিদেশি মুসল্লিরা প্রতি বছর বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিতে পারবেন। ২০১১ সাল থেকে বিশ্ব ইজতেমা দুই ধাপে করা হয়েছে। ২০১১ সালের আগে প্রতি বছর এক ধাপে অনুষ্ঠিত হতো বিশ্ব ইজতেমা।